ফিচার

এসএসসি পরীক্ষা-২০১২ : পদার্থবিজ্ঞান সাজেশন (ঢাকা বোর্ড)

অধ্যায় : ০১ (ভৌত বিজ্ঞানের বিকাশ)
জ্ঞানমূলকঃ
***১। পরীক্ষামূলক বৈজ্ঞানিক পদ্ধতির প্রবক্তা কে ছিলেন?
***২। কত সালে রয়েলে একাডেমী প্রতিষ্ঠিত হয়।
***৩। পরীৰণ নির্ভর বিজ্ঞানী কে ছিলেন?
অনুধাবনমূলকঃ
***১। থেলিস কী জন্য বিখ্যাত্য ছিলেন?
***২। সনাতনী পদার্থবিজ্ঞানীকে নিউটনীর পদার্থ বিজ্ঞান বলা হয় কেন?
প্রয়োগঃ
১। বিজ্ঞানীদের কাজের ধাপগুলো প্রবাহ চিত্রের মাধ্যামে দেখাও।
২। শিল্প উৎপাদনের কাঠামো, কলাকৌশল ও উৎপাদন পদ্ধতির আমূল পরিবর্তনে শিল্প বিল্পবের অবদান বর্ণনা কর।
উচ্চতর দৰতাঃ
১। বিজ্ঞানীদের কাজের ধারা পযর্ালোচনা কর।
২। কেলপার, গ্যালিলিও ও নিউটনের কাজের ধারা আলোচনা কর।

অধ্যায় : ০২
জ্ঞানমূলক:
***১। মাত্রা সমীকরণ কাকে বলে?
***২। লঘিষ্ঠ গণন কাকে বলে?
***৩। ফাঁকা চোঙের ব্যাস কোন যন্ত্রের সাহায্যে নির্ণয় করা হয়?
**৪। মৌলিক একক কী?
**৫। পরিমাপ কী?
***৬। মাইক্রোমিটার কী?
***৭। ভার্নিয়ার স্কেল কী?
***৮। স্ক্রু গজের শূন্য কী?
অনুধাবনমূলক:
***১। এককের আনত্মর্জাতিক পদ্ধতি বলতে কী বোঝ?
***২। বল কীভাবে একটি লব্ধ রাশি তা বুঝিয়ে লিখ?
**৩। স্ক্রু-গজের কার্যপ্রণালি ব্যাখ্যা কর।
**৪। একটি স্ক্রু-গজের যে যান্ত্রিক ত্রম্নটি রয়েছে তা কীভাবে বুঝা যায়?
***৫। বিভিন্ন রাশির মাত্রা সমীকরণ জানা প্রয়োজন কেন?
***৬। এস. আই. এককের ঝ.খ. বলতে কী বোঝায়?
**৭। সস্নাইড ক্যালিপাসের ব্যবহার লিখ।
**৮। এস. আই. পদ্ধতিতে মৌলিক রাশিগুলোর নাম ও একক লিখ।
প্রয়োগঃ
১। সস্নাইড ক্যালিপার্সের সাহায্যে চোঙের আনত্মব্যাস নির্ণয় পদ্ধতি বর্ণনা কর।
২। কীভাবে ভার্নিয়ার ধ্রম্নবক নির্ণয় করা হয় বর্ণনা কর।
৩। স্ক্রু-গজের সাহায্যে কীভাবে কোন তারের প্রস্থচ্ছদের ৰেত্রফল নির্ণয় করা যায়?
৪। দেখাও যে, নিউটন একটি লব্ধ একক।
৫। মাত্রা সমীকরণের ব্যবহার/প্রয়োজনীয়তা লিখ।
৬। কীভাবে পিছট ত্রম্নটি পরিহার করা যায়?
***অধ্যায় : ০৩ (গতি)
জ্ঞানমূলকঃ
***১। গতি কী?
***২। সুষম বেগ কাকে বলে?
***৩। সুষম ত্বরণ কী?
***৪। বল কাকে বলে?
***৫। ভরবেগ কাকে বলে?
***৬। স্কেলার রাশি কাকে বলে?
***৭। ভেক্টর রাশি কাকে বলে?
***৮। নিউটনের গতি সূত্র কয়টি?
***৯। সরণের একক কি?
***১০। দ্রম্নতির একক কি?
***১১। দ্রম্নতির মাত্রা সমীকরণ লিখ।
***১২। ত্বরণের সংজ্ঞা দাও।
***১৩। ঋণাত্বক ত্বরণ কাকে বলে?
অনুধাবনমূলকঃ
***১। কোন বস্তুর দ্রম্নতি ৫০সয-১ বলতে কী বোঝ?
***২। জড়তা বলতে কী বোঝ?
***৩। থেমে থাকা বাস হঠাৎ চলা শুরম্ন করলে বাস যাত্রী পেছনের হেলে পড়েন কেন?   ব্যাখ্যা কর।
***৪। ঝঙঘ বলতে কী বোঝ?
***৫। কোনো বস্তুর গড়বেশ শূন্য কিন্তু গড় দ্রম্নতি শূন্য নাও হতে পারে_ ব্যাখ্যা কর।
***৬। জ্যামিতিক উপায়ে ভেক্টর রাশিকে কীভাবে নির্দেশ করা হয়?
***৭। কোন বস্তুর সরণ ৪০স পূর্ব দিকে বলতে কী বোঝ?
***৮। নিউটনের প্রথম সূত্র থেকে কীভাবে বলের সংজ্ঞা পাওয়া যায়? ব্যাখ্যা কর।
***৯। কোনো বস্তুর ভরবেগ ৫০০শমসং-১ বলতে কী বোঝ?
***১০। স্থিতি জড়তা ও গতি জড়তার মধ্যে পার্থক্য লিখ।
***১১। গুলি ছুঁড়ার পর বন্দুক পিছনে সরে যায় কেন?
প্রয়োগঃ
১। স্থির অবস্থান থেকে চলমান একটি মোটরসাইকেলের বেগ ১৫ সেকেন্ডে ৩০সং-১ হয় এবং পরবর্তী সময়ে সমবেগে চলতে থাকলে মোটরসাইকেলটি ২০ সেকেন্ড কত দূরত্ব অতিক্রম করবে?
২। ৬০০ কেজি ভরের একখানি গাড়ি ২০সং-১ বেগে সরল পথে চলতে চলতে ১৪০০ কেজি ভরের একখানি স্থির ট্রাকের সাথে ধাক্কা খেয়ে আটকে গেল। মিলিত গাড়ি দুটির বেগ কত হবে?
৩। “মহাবিশ্বের সকল স্থিতিই আপেৰিক সকল গতিই আপেৰিক। কোন স্থিতি বা গতি পরম নয়।” উদাহরণের সাহায্যে এই বিবৃতি ব্যাখ্যা কর।
৪। ত্বরণের মাত্রা নির্ণয় কর।
৫। প্রমাণ কর যে, স্থির অবস্থান থেকে সুষম ত্বরণে চলমান বস্তুর অতিক্রানত্ম দূরত্ব সময়ের বর্গের সমানুপাতিক।
৬। প্রমাণ কর যে, স্থির অবস্থান থেকে সুষম ত্বরণে চলমান বস্তুর যে কোন সময়ের বেগ বস্তুর অতিক্রানত্ম দূরত্বের বর্গমূলের সমানুপাতিক।
৭। ভরবেগের মাত্র নির্ণয় কর।


অধ্যায়ঃ ০৪ (মহাকর্ষ ও অভিবর্ষ)
জ্ঞানমূলকঃ
***১। মহাকর্ষীর ধ্রম্নবক কাকে বলে?
***২। বস্তুর ওজন কাকে বলে?
***৩। মহাকর্ষ ধ্রম্নবক এ- এর মান কত?
***৪। আপেল ও পৃথিবীর মধ্যকার আকর্ষণ বলতে কী বলে?
***৫। ঝুলনবিন্দু কী?
***৬। দোলনকার কাকে বলে?
***৭। কম্পাঙ্ক কী?
***৮। ওজনের একক কী?
***৯। ওজনের মাত্রা লিখ।
***১০। অভিকর্ষজ ত্বরণের আদর্শ মান কত?
***১১। মহাকর্ষ ধ্রম্নবক এ- এর মাত্রা কী?
***১২। অভিকর্ষ ত্বরণের মাত্রা কী?
***১৩। ম এর আর্দশ মান কোথায় ধরা হয়?
***১৪। অভিকর্ষ বল কী?
***১৫। ওজনহীনতা কী?
***১৬। পৃথিবী ও চাঁদের আকর্ষণকে কি বলা হয়?
অনুধাবনমূলকঃ
***২। ভূ-পৃষ্ঠে অভিকর্ষজ ত্বরণের মান কোথাও বেশি আবার কোথাও কম হয় কেন?
***৩। একটি দোলক ঘড়িকে বিষুব অঞ্চল থেকে মেরম্ন অঞ্চলে নিলে ঘড়িটি দ্রম্নত চলবে কেন?
***৪। কোনো বস্তুর উপর থেকে নিচের দিকে পড়ার কারণ ব্যাখ্যা কর।
***৫। নিউটনের মতে আপেল ও পৃথিবীর আর্কষণ বল কিসের উপর নির্ভর করে_ ব্যাখ্যা কর।
***৬। সরল দোলকের দোলনকাল ও কম্পাঙ্কর মধ্যকার সম্পর্ক ব্যাখ্যা কর।
***৮। লিফটের মধ্যে কোনো ব্যক্তি কখন ওজনহীনতা অনুভব করতে পারবেন?
***৯। পৃথিবীর কেন্দ্রে বস্তুর ভর থাকা সত্ত্বেও ওজন শূন্য হয় কেন? ব্যাখ্যা কর।
***১০। পড়নত্ম বস্তুর ৩য় সূত্রটি ব্যাখ্যা কর।
***১১। বস্তু কোথায় ওজনহীন মনে হয়?
***১২। পৃথিবী ও চাঁদের পরস্পরের প্রতি আর্কষণের কারণ কী?
প্রয়োগঃ
১। দেখাও যে, অভিকর্ষজ ত্বরণ বস্তু নিরপেৰ হলেও স্থান নিরপেৰ নয়।
২। অভিকর্ষজ ত্বরণ মহাকর্ষীর ধ্রম্নবকের মাঝে সম্পর্ক স্থাপন কর।
৩। অভিকর্ষজ ত্বরণকে কীভাবে পৃথিবীর ভর, মহাকর্ষীয় ধ্রম্নবক ও পৃথিবীর ব্যাসার্ধের সাথে সম্পর্কিত করা যায়?
৪। সরল দোলকের সাহায্যে কোন স্থানের অভিকর্ষজ ত্বরণ ‘ম্থ-এর মান নির্ণয়ের পরীৰা কর।
৫। একটি সরল দোলকের ভরের ব্যাস ০.৫৮পস এবং সুতার দৈর্ঘ্য ৯৯পস। কোন স্থানে দোলকটির একটি পূর্ণ দোলনের জন্য ২ং সময় লাগে। ঐ স্থানে অভিকর্ষজ ত্বরণের মান নির্ণয় কর।
উচ্চতর দৰতা :
২। অভিকর্ষজ ত্বরণ ম-এর সমীকরণ প্রতিপাদন কর।
৩। সরল দোলকের সূত্রগুলো বর্ণনা ও ব্যাখ্যা কর।
৪। সরল দোলকের দোলন কালের পরিবর্তন অভিকর্ষজ ত্বরণের সাথে কীভাবে পরিবর্তিত হয় দোলকের ত্বরণের সূত্রের আলোকে উদাহরণসহ ব্যাখ্যা কর।
৫। একটি সরল দোলকের কার্যকরী দৈর্ঘ্য ২.৪৫স হলে দোলকটির দোলনকাল নির্ণয় কর।

***অধ্যায়ঃ ০৫ (কাজ, ৰমতা ও শক্তি)
জ্ঞানমূলকঃ
**১। কাজের সংজ্ঞা দাও।
***২। জুল কাকে বলে।
***৩। বিভব শক্তির সংজ্ঞা দাও।
***৪। শক্তির সংরৰণশীল নীতিটি লিখ।
***৫। কর্মদৰতা কাকে বলে?
***৬। শক্তির রূপানত্মর কী?
***৭। ওয়াট কী?
***৮। শক্তির মাত্রা সমীকরণ লিখ।
***৯। শক্তির কয়টি রূপ?
***১০। কাজের এককের সংজ্ঞা দাও।
***১১। যান্ত্রিক শক্তি কী?
***১২। জলবিদু্যৎ কাকে বলে?
***১৩। ৰমতা কী?
***১৪। কাজ কোন ধরনের রাশি?
অনুধাবনমূলকঃ
***১। শক্তির সংরৰণশীলতার নীতিটি ব্যাখ্যা কর।
***২। ৬০ড-এর বৈদু্যতিক বালব-এর অর্থ কী?
***৩। কোন বস্তুর গতিশক্তি ৫০০ঔ বলতে কী বোঝ?
***৪। কাজ ও ৰমতার মধ্যে পার্থক্য দেখাও।
***৫। কর্মদৰতা বলতে কী বোঝায়?
***৬। শক্তি ও ৰমতার মধ্যে ৪টি পার্থক্য লিখ।
***৭। বলের দিকে সরণের উপাংশ বলতে কী বোঝ?
***৮। বিভব শক্তির একটি উদাহরণ দাও।
***৯। কিলোওয়াট ঘণ্টা বলতে কী বোঝ?
***১০। অভিকর্ষজ বিভব শক্তি বলতে কী বোঝ?
***১১। অভিকর্ষ বিভব শক্তি বলতে কী বোঝ?
***১২। কোন যন্ত্রের কর্মদৰতা ৯০% বলতে কী বুঝায়?
***১৩। ধনাত্মক কাজ বলতে কী বোঝায়?
***১৪। ৫ঔ কাজ বলতে কী বোঝায়?
***১৫। বলের বিরম্নদ্ধে কাজ বলতে কী বোঝায়?
প্রয়োগ উচ্চতর দৰতাঃ
***১। ১০০স দৌড় প্রতিযোগিতার ৬০শম ভরের একজন দৌড়বিদ প্রথম হন। তিনি এতে সময় নেন ১২.৫ং। দৌড়ের সময় তার গতিশক্তি কত ছিল?
***২। ২০ঘ বল কোন নির্দিষ্ট ভরের ওপর ক্রিয়া করায় বসত্মটি বলের দিকে ৬০ কোণ উৎপন্ন করে ৫স দূরে সরে গেল কাজের পরিমাপ নির্ণয় কর।
৩। বল ও সরণের মধ্যবর্তী কোণের মান কিরূপ হলে বলের দ্বারা কাজও বলের বিরম্নদ্ধে কাজ হয় ব্যাখ্যা কর।
***৪। ৬৫ম ভরের এক ব্যক্তি প্রতিটি ২পস উঁচু ২০ টি সিঁড়ি ১০ং এ উঠতে পারে। তার ৰমতা কত?
**৫। গাণিতিক বিশেস্নষণের মাধ্যমে প্রমাণ কর অভিকর্ষের প্রভাবে মুক্তভাবে পড়নত্ম বস্তুর বিভব শক্তি ও গতিশক্তির সমষ্টি সর্বদা ধ্রম্নবক।
***৬। ১০শ িৰমতার ইঞ্জিন ১০০০শম পানি ১০স উচ্চতায় ১ মিনিটে তুলতে পারে। কে) লভ্য কার্যকর শক্তি (খ) লভ্য কার্যকর ৰমতা (গ) ইঞ্জিনের কর্মদৰতা বের করো।
***৭। প্রমাণ কর যে, নির্দিষ্ট ভরের গতিশক্তি এর বেগের বর্গের সমানুপাতিক।
***৮। দেখাও যে, অভিকর্ষের প্রভাবে মুক্তভাবে পড়নত্ম বস্তুর ক্ষেত্রে বিভবশক্তি ও গতিশক্তির সমষ্টি সর্বদা ধ্রম্নব থাকে?

*** অধ্যায়ঃ ০৬ (তরল ও বায়বীয় পদার্থ)
জ্ঞানমূলকঃ
***১। সজ্ঞা দাও : ঘনত্ব, চাপ, পস্নবতা, পানির ঘনত্ব, হাইড্রোলিক প্রেস, প্যাসকেল, আপেৰিক গুরম্নত্ব।
***২। চাপের একক, ঘনত্বের মাত্রা, চাপের মাত্রা কি? মাত্রা কি?
***৩। আর্কিমিডিসির সূত্রটি লিখ।
**৪। বল বৃদ্ধিকরণ নীতি কী?
অনুধাবনমূলকঃ
***১। তরলের অভ্যনত্মরের কোন বিন্দুতে চাপ কোন কোন বিষয়ের ওপর নির্ভর করে?
***২। লোহার একটি টুকরা পানিতে ডুবে যায় কিন্তু লোহার তৈরি জাহাজ পানিতে ভাসে কেন?
**৩। চাপ সম্পর্কিত প্যাসকেলের সূত্রটি বিবৃত ও ব্যাখ্যা কর?
***৪। কোন বস্তুকে তরলে ডুবালে তা হালকা মনে হয় কেন?
***৫। আপেৰিক গুরম্নত্বের ওপর তাপমাত্রার প্রভাব ব্যাখ্যা কর।
***৬। পানিতে বস্তু ভাসা ও নিমজ্জলের কারণ ব্যাখ্যা কর।
***৭। হাইড্রোলিক প্রেস কী কী কাজে ব্যবহৃত করা হয়?
***৮। হাইড্রোলিক প্রেসকোন নীতির ওপর ভিত্তি করে তৈরি ?ব্যাখ্যা কর।
***৯। নদী অপেৰা সমুদ্রের পানিতে সাঁতার কাটা সহজ কেন? ব্যাখ্যা কর।
***১০। আপেৰিক গুরম্নত্ব ও ঘনত্বের মধ্যে পার্থক্য লিখ।
প্রয়োগ ও উচ্চতর দৰতাঃ
***১। আর্কিমিডিসের সূত্র প্রয়োগ করে পানিতে অদ্রবণীয় ও পানির চেয়ে ভারী কঠিন পদার্থের আপেৰিক গুরম্নত্ব নির্ণয় পদ্ধতি বর্ণনা কর।
***২। আর্কিমিডিসের গতি প্রয়োগ করে কোন সোনার মুকুট ভেজাল না খাঁটি কীভাবে নিরূপণ করবে তা বর্ণনা কর।
**৩। দেখাও যে, তরলের উপরিতল থেকে য গভীরতার কোন বিন্দুতে চাপ যঢ়ম.
***৪। দেখাও যে, নির্দিষ্ট তরলের জন্য নির্দিষ্ট জায়গায় চাপ গভীরতায় সমানুপাতিক।
***৫। চিত্রসহ একটি হাইড্রোলিক প্রেসের গঠন ও তার কার্যপ্রণালি বর্ণনা কর।
***৬। আর্কিমিডিসের নীতির সতত্যা প্রমানের একটি পরীৰা বর্ণনা কর।
**৭। আর্কিমিডিসের সূত্র প্রয়োগ করে পানিতে দ্রবণীয় ও পানি অপেৰা ভারী একটি কঠিন বস্তুর একটি কঠিন বসত্মর আপেৰিক গুরম্নত্ব নির্ণয়ের পদ্ধতি বর্ণনা কর।
**৮। পানিতে অদ্রবণীয় ও পানির চেয়ে হালকা কঠিন পদার্থের আপেৰিক গুরম্নত্ব নির্ণয়ের পদ্দতি বর্ণনা কর।
অধ্যায়ঃ৭ (তরঙ্গ)
জ্ঞানমূলকঃ
***১। সজ্ঞা দাওঃ সরল ছন্দিত স্পন্দত, তরঙ্গ, পর্যায়কাল, দশা, অনুগ্রস্থ তরঙ্গ, অনুদৈর্ঘ্য তরঙ্গ, অগ্রগামী তরঙ্গ, তরঙ্গ মুখ, কম্পান, তাড়িত চৌম্পক তরঙ্গ।
***২। সকল স্পন্দনই পর্যায়বৃত্ত গতি কিন্তু সকল পর্যায়বৃত্ত গতিই স্পন্দন নয় ব্যাখ্যা কর।
***৩। অনুদৈর্ঘ্য তরঙ্গ সঞ্চালন প্রক্রিয়া ব্যাখ্যা কর।
***৪। অনুপ্রস্থ ও অনুদৈর্ঘ্য তরঙ্গর পার্থক্য ব্যাখ্যা কর।
**৫। পানির মধ্যে শব্দ হলে বাইরে থেকে শোনা যায় না কেনও?
***৬। ভ ও ঞ এর মধ্যে সম্পর্ক স্থাপন করে দেখাও।
**৭। অগ্রগামী তরঙ্গের বৈশিষ্ট্য কী কী?
প্রয়োগ ও উচ্চতর দৰতা ঃ
***১। তরঙ্গ কী তরঙ্গের বৈশিষ্ট্যগুলো বর্ণনা কর।
***২। কম্পাঙ্ক ও পর্যায়কালের মধ্যে সম্পর্ক স্থাপন কর।

***অধ্যায়ঃ ০৮ (শব্দ)
জ্ঞানমূলক সংজ্ঞাঃ
***১। সংজ্ঞা দাওঃ শব্দ, শব্দের প্রতিধ্বনি, শব্দানুভূতির স্থায়িত্বকাল, শ্রাবত্যার পালস্না, শব্দের তরঙ্গ, শব্দোত্তর তরঙ্গ।
***২। সমুদ্রের পানিতে শব্দের গতি বেগ কত?
***৩। বাদুড়ের ও কুকুরের শ্রবত্যার ঊধর্্বসীমা কত?
**৪। লোহার মধ্যে শব্দের দ্রম্নতি বাতাসের কতগুণ?
**৫। পানির মধ্যে শব্দ বাতাসের চেয়ে কতগুণ দ্রম্নত চলে?
**৬। প্রতিধ্বনি শোনার জন্য উৎস ও প্রতিফলকের মধ্যবর্তী নূ্যনতম দূরত্ব কত হওয়া প্রয়োজন?
**৭। লোহায় ও পানিতে শব্দের দ্রম্নতি কত?
অনুধাবনমূলকঃ
***১। শব্দ কীভাবে উৎপন্ন হয় ব্যাখ্যা কর।
***২। শব্দ দূষণের কারণগুলো কী কী?
***৩। শব্দ দূষণের কী কী ৰতি হতে পারে?
***৪। সকল শব্দের প্রতিধ্বনি শোনা যায় না কেন?
***৫। শব্দের বৈশিষ্ট্য কী কী?
***৬। বাতাসে ও পানিতে শব্দের দ্রম্নতি সমান নয় কেন? ব্যাখ্যা কর।
***৭। প্রতিধ্বনি শোনার শর্তসমূহ ব্যাখ্যা কর।
প্রয়োগ ও উচ্চতর দৰতাঃ
***১। বায়ুর, মাধ্যমে শব্দ সঞ্চালনের কৌশল বর্ণনা কর।
***২। শব্দ দূষণ রোধে কী কী পদৰেপ গ্রহণ করা প্রয়োজন যুক্তিসহকারে বর্ণনা কর।
***৩। শব্দ দূষণের ৰতিকর দিকগুলো বর্ণনা কর।
***৪। প্রতিধ্বনির সাহায্যে সমুদ্রের গভীরতা নির্ণয় পদ্ধতি বর্ণনা কর।
***৫। প্রতিধ্বনি কীভাবে সৃষ্টি হয়?
***৬। প্রতিধ্বনির সাহায্যে কীভাবে কূপের গভীরতা নির্ণয় করা যায় তা বর্ণনা কর।

*** অধ্যায় : ০৯ (বস্তুর ওপর তাপের প্রভাব)
জ্ঞানমূলকঃ
***১। সজ্ঞা দাও : তাপশক্তি, তাপমাত্রা, দৈর্ঘ্য প্রসারণ সহগ, পুনঃশিলীভবন, স্বতঃবাষ্পীভবন, বাষ্পীভবনের আপেৰিক সুপ্ততাপ, ১০প, স্ফুটনাঙ্ক, তরলের আপাত প্রসারণ, স্ফুটন, প্রসারণ, গলনাঙ্ক, আয়তন প্রসারণ সহগ ইত্যাদি।
***২। তাপ ও তাপমাত্রা পরিমাণের যন্ত্রের নাম কী?
***৩।গ্যাসের আয়তন প্রসারণ কী?
***৪। তাপমাত্রার একক কী?
অনুধাবনমূলকঃ
***১। তাপ ও তাপমাত্রার পার্থক্য কী?
***২। শীত প্রধান দেশে পানির পাইপ ফেটে যায় কেন?
***৩। সুউচ্চ পাহাড়ে রান্না করা দুরূহ কেন?
***৪। স্ফুটনাঙ্কের সাথে চাপের সম্পর্ক কী? ব্যাখা্য কর।
***৫। দুই টুকরো বরফকে একত্রে চাপ দিলে জোড়া লেগে যাওয়ার কারণ কী?
***৬। হেরিকেনের গরম চিমনির উপর ঠা-া পানি পড়লে তা ফেটে যায় কেন?
প্রয়োগ ও উচ্চতর দৰতাঃ
***১। পুরম্ন কাচের গস্নাসে গরম পানি ঢাললে গস্নাসটি ফেটে যায় কেন? ব্যাখ্যা কর।
**২। চাপ বৃদ্ধিতে গলানাঙ্ক কমে যায় একটি পরীৰার সাহায্যে বর্ণনা কর।
***৩। স্ফুটনাঙ্কের ওপর চাপের প্রভাব বর্ণনা কর। এই প্রভাব প্রদর্শনের জন্য একটি পরীৰা বর্ণনা কর।
*৪। কঠিন পদার্থের গলনাঙ্ক কাকে বলে? বটমলির পরীৰায় কী কী শতর্কতা অবলম্বন করতে হয় বর্ণনা কর।

***অধ্যায় : ১০ (ক্যালিরিমিতি)
জ্ঞানমূলকঃ
***১। সংজ্ঞা দাওঃ তাপ ধারণৰমতা, তাপ ধারণৰমতার একক, আপেৰিক তাপ, আপেৰিক তাপের একক, থার্মোমিটার ইত্যাদি।
***২। ক্যালরিমিটার যন্ত্র এর প্রধান অংশটি কী ও রেনোর ক্যালরিমিটারের প্রধান অংশ কয়টি?
অনুধাবনমূলকঃ
***১। কোন বস্তুর তাপধারণ ৰমতা ১৮০০০ঔশ১এর অর্থ কী?
***২। তাপধারণ ৰমতা ও আপেৰিক তাপের মধ্যে সম্পর্ক স্থাপন কর।
***৩। ক্যালরিমিতির মূলনীতি ব্যাখ্যা কর।
***৪। গারির ইঞ্জিন ঠা-া রাখার জন্য পানি ব্যবহার করা হয় কেন?
***৫। প্রমাণ কর যে, তাপধারণ ৰমতা = ভর ত্ম আপেৰিক তাপ।
প্রয়োগ ও উচ্চতর দৰতা :
***১। সতকর্তাসহ কঠিন পদার্থের আপেৰিক তাপ নির্ণয়ের একটি পদ্ধতি বর্ণনা কর।
***২। বরফগলনের আপেৰিক সুপ্ততাপ নির্ণয় পদ্ধতি বর্ণনা কর।
*৩। পানি উচ্চ আপেৰিক তাপের গুরম্নত্ব বর্ণনা কর।
***৪। তাপধারণ ৰমতা ও আপেৰিক তাপের মধ্যে সম্পর্ক স্থাপন কর।
***৫। কঠিন পদার্থের আপেৰিক তাপ নির্ণয়ের একটি পদ্ধতি বর্ণনা কর।
***অধ্যায় : ১১ (তাপ সঞ্চালন)
জ্ঞানমূলকঃ
***১। সজ্ঞা দাওঃ তাপ পরিবাহকত্ব, তাপের বিকিরণ, তাপ সুপরিবাহক পদার্থ, তাপ কুপরিবাহক পদার্থ, বিকিরণ, তাপের অপরিবাহক, ফেল্ট, তাপের পরিচলন ইত্যাদি।
***২। বিকিরণ পদ্ধতিতে তাপ কীভাবে সঞ্চালিত হয়?
***৩। কোন পদার্থের মধ্য দিয়ে তাপের পরিবহন সবচেয়ে বেশি?
অনুধাবনমূলকঃ
***১। কাচের ঘর বা সবুজ বাড়ি সবসময় গরম থাকে। কারণ ব্যাখ্যা কর।
***২। মরম্ন অঞ্চলে দিনে তীব্র গরম আর রাতে তীব্র শীত অনুভূত হয় কেন? ব্যাখ্যা কর।
**৩। কোনো পরিবাহকের মধ্য দিয়ে পরিবহন পদ্ধতিতে সঞ্চালিত তাপ কোন কোন বিষয়ের উপর নির্ভর করে?
***৪। লোহার তাপ পরিবাহকত্ব ৮০ডস১ক১বলতে কী বোঝ?
**৫। আগুনের পাশের কোন স্থান থেকে একই দূরত্বে এর ঠিক উপরে কোন স্থান বেশি উত্তপ্ত হয় কেন?
***৬। খড়ের ছাদযুক্ত ঘর গরমকালে ঠা-া ও শীতকালে গরম থাকে কেন?
প্রয়োগ ও উচ্চতর দৰতাঃ
***১। বিভিন্ন ধাতব পদার্থের তাপ পরিবাহকত্বের তুলনা করার ৰেত্রে ইনজেনহাইসের পরীৰা বর্ণনা কর।
***২। তাপ পরিবাহকত্ব নির্ণয়ে সার্লির পদ্ধতি বর্ণনা কর।
**৩। শীতের দিনে পশমী কাপড় পরা আরামদায়ক কেন? ব্যাখ্যা কর।
অধ্যায় : ১২ (তাপীয় যন্ত্র)
জ্ঞানমূলকঃ
***১। সজ্ঞা দাওঃ তাপ ইঞ্জিন, অনত্মর্দহ ইঞ্জিন, ফ্রেয়ন, বাষ্পীয় ইঞ্জিন, বর্হিদহ ইঞ্জিন ইত্যাদি।
***২। পেট্রোল ইঞ্জিন আবিষ্কার করেন কে? ইহার দৰতা কত? এর চারটি ঘাতকের নাম কী?
অনুধাবনমূলকঃ
***১। পেট্রোল ইঞ্জিনকে চতুর্ঘাত ইঞ্জিন বলা হয় কেন?
***২। রেফ্রিজারেটরের কম্প্রোসারের কাজ কী?
***৩। অটোচক্র কী?
***৪। রেফ্রিজারেট কিভাবে শীতলতা সুষ্টি করা হয়?
***৫। অনত্মর্দহ ও বর্হিদহ ইঞ্জিনের পার্থক্য লিখ।
***৬। কিসের সাহায্যে এবং কিভাবে পেট্রোলকে বাষ্পে পরিণত করা হয়?
***৭। তাপশক্তি কাজে লাগানোর জন্যে ইঞ্জিনের কি কি ব্যবস্থা থাকা প্রয়োজন?
প্রয়োগ ও উচ্চতর দৰতাঃ
***১। চিত্রের সাহায্যে একটি পেট্রোল ইঞ্জিনের চারটি ঘাতের ক্রিয়া ব্যাখ্যা কর।
**২। রেফ্রিজারেটরের তারজালি বা ফিনের প্রয়োজনীতা বর্ণনা কর।
***৩। একটি রেফ্রিজারেটরের গঠন ও কার্যানীতি বর্ণনা কর।
***৪। চিত্রের সাহায্যে একটি পেট্রোল ইঞ্জিনের গঠন ও কার্যপ্রণালি বর্ণনা কর।
অধ্যায় : ১৩ (আলোর প্রকৃতি)
জ্ঞানমূলকঃ
***১। সজ্ঞা দাও: আলোর ফ্লাঙ্, দীপন ৰমতা, দীপন তীব্রতা, এক লাঙ্, ইথার, আলোক রশ্মিগুচ্ছ, দৃশ্যমান আলোর তরঙ্গ দৈর্ঘ্যের পালস্না, দ্বীপ্তিমিতি ইত্যাদি।
***২। কোন বিজ্ঞানী আলোর কণাতত্ত্ব প্রদান করেন?
***৩। দীপন ৰমতার, আলোর ফ্লাঙ্রে, দীপন তীব্রতার সংকেত কী?
***৪। শূন্যস্থানে আলোর বেগ কত?
***৫। শরীরের ত্বকে ভিটামিন তৈরির সাহায্য করে কোন রশ্মি?
অনুধাবনমূলকঃ
***১। সজ্ঞা দাওঃ ঘনকোণ, এক স্টেরিডিয়াম, এক লুমেন অভিসারী রশ্মি, অপসারী রশ্মিগুচ্ছ, আলোর কোয়ান্টাম অবলোহিত রশ্মি।
***২। ফটো তড়িৎ ক্রিয়া আলোর কোন ততব্ব দ্বারা ব্যাখ্যা করা যায়?
***৩। দীপন ৰমতা ও দীপন তীব্রতার মধ্যে সম্পর্ক কী?
***৪। একটি গোলক তার কেন্দ্রে যে ঘনকোণ আবদ্ধ করে তা ব্যাখ্যা কর।
প্রয়োগ ও উচ্চতর দৰতা ঃ
***১। দীপন তীব্রতা ও দীপন ৰমতার মধ্যে সম্পর্ক স্থাপন কর।
***২। দীপন তীব্রতার বিপরীত বর্গীয় সূত্রটি বিবৃত কর এবং ব্যাখ্যা কর।
***অধ্যায়: ১৪ (আলোর প্রতিফলন)
জ্ঞানমূলক সংজ্ঞাঃ
***১। সজ্ঞা দাও : আলোর প্রতিফলন, নিয়মিত প্রতিফলন, ব্যাপ্ত প্রতিফলন, রৈখিক বিবর্ধন, আপাতন কোণ, বক্রতার কেন্দ্র, বক্রতার ব্যাসার্ধ, প্রধান অৰ, গৌণ অৰ, অসদ বিম্ব, পার্শ্ব পরির্তন, বিম্ব, ফোকস দূরত্ব, গোলীয় দর্পণ, প্রতিফলন কোণ প্রধান ফোকাস, সমতল, দর্পণ ইত্যাদি।
অনুধাবনমূলকঃ
***১। সদ ও অসদ বিম্বের মধ্যে পার্থক্য লিখ।
***২। দর্পণের ব্যবহারগুলো কী কী?
***৩। দর্পণ চেনার উপায় কী?
***৪। ছোট আয়নায় কোনো ব্যক্তির পূর্ণ প্রতিবিম্ব দেখা যায় না কেন?
***৫। বিৰিত প্রতিফলন এর বিম্ব সৃষ্টি হয় না কেন?
***৬। আলোর ব্যাপ্ত প্রতিফলন ব্যাখ্যা কর।
***৭। আলোর নিয়মিত প্রতিফলন ব্যাখ্যা কর।
***৮। নিয়মিত ও ব্যাপ্ত প্রতিফলনের পার্থক্য কী?
প্রয়োগ ও উচ্চতর দৰতাঃ
***১। সমতল দর্পণের ৰেত্রে দেখাও যে, লৰ্যবস্তু দর্পণের যত সামনে থাকে বিম্ব দর্পণের ঠিক ততটা পেছনে গঠিত হয়?
***২। দেখাও যে, অবতল দর্পণের ফোকাস দূরত্ব এর বক্রতার ব্যাসার্ধের অর্ধেক।
**৩। অবতল দর্পণ এর কিভাবে সদ ও অসদ বিম্ব গঠিত হয় চিত্রের সাহায্যে দেখাও।
***৪। দেখাও যে, উত্তল দর্পণের ফোকাস দূরত্ব এর বক্রতার ব্যাসার্ধের অর্ধেক।
***৫। অবতল দর্পণ চেনার উপায় কী?
***৬। প্রমাণ কর যে, কোন সমতল দর্পণকে যে কোণের ঘুরান হয় প্রতিফলিত রশ্মি তা দ্বিগুণ কোণে ঘোরে যায়।
***অধ্যায় : ১৫ (আলোর প্রতিসরণ)
জ্ঞানমূলকঃ
***১। সজ্ঞা দাওঃ প্রতিসরণাঙ্ক, পরম প্রতিসরণাঙ্ক, ক্রানত্মিকোণ, পূর্ণ অভ্যসত্ম কেন্দ্র, বক্রতার ব্যাসার্ধ, প্রধান অৰ, গৌণ অৰ, অসদ বিম্ব, পাশর্্ব পরিবর্তন, সমতল দর্পণ, আলোর প্রতিফলন, প্রধান ফোকাস, প্রতিফলন কোণ, ব্যাপ্ত প্রতিফলন, অবাসত্মব প্রতিবিম্ব, উত্তল দর্পণ, দর্পণ, ফোকাস দূরত্ব ইত্যাদি।
***২। সেস্নলের সূত্রটি বিবৃত কর।
অনুধাবনমূলকঃ
***১। প্রতিসরণের সূত্রগুলো বর্ণনা কর।
***২। অপটিক্যাল ফাইবার কী কী কাজে লাগে?
***৩। পানির সাপেৰে হীরকের ক্রানত্মি কোণ ৩৩০ বলতে কী বোঝায়?
***৪। পূর্ণ অভ্যনত্মরীণ প্রতিফলনের জন্য কী কী শর্ত মেনে চলে?
***৫। বায়ুর সাপেৰে কাচের প্রতিসরণাঙ্ক ১.৫২ বলতে কী বোঝ?
**৬। আলোর কোন ঘটনার কারণে মরম্নভূমিতে মরীচিকা দেখা যায়?
প্রয়োগ ও উচ্চতার দৰতা
***১। শীতকালে পিচঢালা রাসত্মায় মরীচিকা দেখা না যাওয়ার কারণ বর্ণনা কর।
***২। অপটিক ফাইবার দ্বারা কীভাবে আলো বহন করা যায় বর্ণনা কর।
***৩। গ্রীষ্মের দুপুরে পিচঢালা রাসত্মায় মরীচিকা দেখার ৰেত্রে গাড়ি চালকদের কী কী শর্তকতা গ্রহণ করতে হবে বর্ণনা কর।
***অধ্যায় : ১৬ (লেন্স)
জ্ঞানমূলক:
***১। সজ্ঞা দাও ঃ লেন্স, লেন্সের প্রধান অৰ, ফোকাস তল, লেন্সর ৰমতা, প্রধান অৰ, আলোক কেন্দ্র, প্রধান ফোকাস, ফোকাস দূরত্ব, এক ডাইঅপ্টার, উত্তল লেন্স, রেটিনা ইত্যাদি।
***২। লেন্সের ৰমতার একক কী?
অনুধাবনমূলকঃ
***১। উত্তল লেন্সকে অভিসারী লেন্স বলা হয় কেন?
***২। অবতল লেন্সকে অপসারী লেন্স বলা হয় কেন?
***৩। লেন্সের ব্যবহার লিখ।
***৪। লেন্সের ৰমতা +৫উ বলতে কী বোঝ?
***৫। কোন লেন্সের ৰমতা _২.৫ফ বলতে কী বোঝ?
***৬। উত্তল লেন্স অবতল লেন্সের মত এবং অবতল লেন্স উত্তল লেন্সের মত আচরণ করে কেন?
**৭। কীভাবে লেন্স শনাক্ত করা হয়?
প্রয়োগ ও উচ্চতর দৰতাঃ
***১। চিত্র এঁকে লেন্সের ফোকাস, ফোকাস দূরত্ব, আলোক কেন্দ্র, প্রধান অৰ দেখাও এবং এদের বর্ণনা কর।
*২। উত্তল লেন্স কিভাবে অসদবিম্ব গঠিত হয় চিত্রের সাহায্যে দেখাও।
***৩। উত্তল লেন্স প্রধান অৰের উপর কোন লৰ্যবস্তুর নিম্নোক্ত অবস্থানের জন্য বিম্বের অবস্থান, প্রকৃতি এবং আকৃতি কিরূপ হবে চিত্রের সাহায্যে নির্ণয় কর।
ক) লৰ্যবস্তু অসীম দূরত্বে
খ) লৰ্যবস্তু ২ভ দূরত্বে
গ) লৰ্যবস্তু ভ ও ২ভ- এর মধ্যে
ঘ) লৰ্যবস্তু প্রধান ফোকাস
ঙ) লৰ্যবস্তু আলোক কেন্দ্র ও প্রধান ফোকাসের মধ্যে
***৪। উত্তল লেন্স কিভাবে অসদবিম্ব গঠিত হয় চিত্রের সাহায্যে দেখাও।
***৫। উত্তাল লেন্স প্রধান অৰের উপর কোন লৰ্যবস্তুর নিম্নোক্ত অবস্থানের জন্য বিম্বের অবস্থান প্রকৃতি এবং আকৃতি কিরূপ হবে চিত্রের সাহায্যে নির্ণয় কর।
ক) লৰ্যবস্তু অসীম দূরত্বে
খ) লৰবস্তু লেন্স থেকে ২ভ- এর বেশি দূরত্ব
গ) লৰ্যবস্তু ২ভ দূরত্বে
ঘ ) লৰ্যবস্তু ভ ও ২ভ – এর মধ্যে
ঙ) লৰ্যবস্তু প্রধান ফোকাস
চ) লৰ্যবস্তু আলোক কেন্দ্র ও প্রধান ফোকাসের মধ্যে
**অধ্যায়ঃ ১৭ (দৃষ্টি সহায়ক যন্ত্র)
জ্ঞানমূলকঃ
***১। সংজ্ঞা দাওঃ দূরদৃষ্টি বা দীর্ঘ দৃষ্টি ত্রম্নটি, ৰীণ দৃষ্টি, অণুবীৰণ যন্ত্র, নভোবীৰণ যন্ত্র, দূরবীৰণ যন্ত্র, অ্যাকুয়াস হিউমার, বিবর্ধন ৰমতা, সরল অণুবীৰণ যন্ত্র, অশ্রম্ন, বিৰেপণ ইত্যাদি।
***২। দর্শনাভূতির স্থায়িত্বকাল কত? চোখের প্রধান দুটি ত্রম্নটির নাম লিখ।
***৩। মানুষের স্পষ্ট দর্শনের নূ্যনমত দূরত্ব কত? ক্যামেরার ফিল্মে কিসের প্রলেপ থাকে?
অনুধাবনমূলকঃ
***১। দর্শনানুভূতির স্থায়িত্বকাল বলতে কী বুঝ?
***২। দুটি চোখ থাকার সুবিধা কী?
***৩। বীৰণ কোণ বলতে কী বোঝ?
***৪। ৰীণ দৃষ্টিসম্পন্ন লোকের কী ধরনের অসুবিধা হয়?
***৫। দীর্ঘ দৃষ্টির কারণ ব্যাখ্যা কর।
***৬। জটিল অণুবীৰণ যন্ত্র ও নভোদূরবীৰণ যন্ত্রের মধ্যে পার্থক্য কী?
***৭। চৰুর উপযোজন ব্যাখ্যা কর।
***৮। রেটিনা কী_ব্যাখ্যা কর।
প্রয়োগ ও উচ্চতর দৰতাঃ
***১। ক্যামেরাকে ইলেকট্রনিক চোখ বলা হয় কেন_ব্যাখ্যা কর।
***২। ৰীণ দৃষ্টি ত্রম্নটি কী? একে কীভাবে দূর করা যায়? রশ্মি চিত্রসহ বর্ণনা কর।
***৩। দীর্ঘ দৃষ্টি ত্রম্নটি কী? একে কীভাবে দূর করা যায়? রশ্মি চিত্রসহ বর্ণনা কর।
***৪। একটি ক্যামেরার গঠন ও কার্যপ্রণালি আলোচনা কর।
**৫। দৃষ্টির প্রধান ত্রম্নটিসূমহ কী কী?
***অধ্যায়ঃ ১৮ (আলোর বিচ্ছুরণ ও বিৰেপণ)
***১। সংজ্ঞাঃ প্রিজম, পরিপূরক বর্ণ, গৌণ রংধনু, মৌলিক বর্ণ, বর্ণালি, আলোর বিচ্ছুরণ, বিচু্যতি কোণ, ঘনকোণ ইত্যাদি।
***২। কাচের মধ্যে কোণ আলো কয়টি রঙে বিশিস্নষ্ট হয়?
***৩। প্রিজম দিয়ে গমনের ফলে সাদা আলো কয়টি রঙে বিশিস্নষ্ট হয়?
***৪। লাল বর্ণের আলোর নূ্যনতম বিচু্যতি কোণ কত?
অনুধাবনমূলকঃ
***১। নূ্যনতম বিচু্যতি কোণ বলতে কী বোঝায়?
***২। রংধনু সৃষ্টির মূল কারণ ব্যাখ্যা কর।
***৩। লাল আলোতে গাছের পাতা কালো দেখায় কেন?
***৪। পরিপূরক বর্ণ ব্যাখ্যা কর।
প্রয়োগ ও উচ্চতর দৰতাঃ
***১। প্রিজম কী? প্রিজমে আলোকে রশ্মির প্রতিফলন/প্রতিকার চিত্রসহ বর্ণনা করো।
***২। রংধনুতে আলোর প্রতিফলন ও প্রতিসরণ দুই-ই ঘটে ব্যাখ্যা কর।
***৩। চিত্রসহ নিউটনের বর্ণ চাকতির ব্যাখ্যা করো।
***৪। দর্পণের সাহায্যে সাদা আলোর যৌগিক প্রকৃতির চিত্রসহ বর্ণনা করো।
***৫। দিনের বেলায় চাঁদকে পুরো সাদা দেখালেও সূর্যাসত্মের পরে হলদে দেখায়- ব্যাখ্যা কর।
***৬। সূর্যোদয়ও সূর্যাসত্মের সময় সূর্য লাল দেখায় কেন?
***অধ্যায়ঃ ১৯ (স্থির তড়িৎ)
জ্ঞানমূলকঃ
***১। সংজ্ঞঃ তড়িৎ আবেশ, কুলম্ব, তড়িৎৰেত্রের তীব্রতা, তড়িৎ বিভব মুক্ত আধান, এক কুলম্ব আধান, বিভবানত্ম ইত্যাদি।
***২। তড়িৎবিভবের একক কী? কুলম্ব ধ্রম্নবকের মান কত? কুলম্বের সূত্রটি বর্ণনা কর।
অনুধাবনমূলকঃ
***১।পৃথিবীর বিভব শূন্য ধরা হয় কেন?
***২। তড়িৎৰেত্রে কোনো বিন্দুর বিভব ২৫ড়া বলতে কী বোঝায়?
***৩। স্বর্ণপাত তড়িৎবীৰণ যন্ত্রের সাহায্যে কীভাবে আধানের প্রকৃতি নির্ণয় করা যায়?
***৪। কুলম্বের সূত্রটিকে গাণিতিকভাবে ব্যাখ্যা কর।
***৫। আহিতকরণ ব্যাখ্যা কর।
***৬। কুলম্বের সূত্রের ৰেত্রে বল কিসের ওপর নির্ভর করে, ব্যাখ্যা কর।
***৭। ঘর্ষণ দ্বারা কীভাবে তড়িতের সৃষ্টি হয়?
প্রয়োগ ও উচ্চতর দৰতাঃ
***১। বিদু্যৎবীৰণ যন্ত্রের গঠন বর্ণনা কর। এ যন্ত্র দিয়ে কীভাবে আধানের প্রকৃতি নির্ণয় করা যায় বর্ণনা কর।
***২। আবেশ প্রক্রিয়ায় কোন ধাতবদ-কে কিভাবে ধনাত্মক ও ঋণাত্মক আধানের আহিত করা যায় বর্ণনা কর।
***৩। দুইটি চার্জের মধ্যে ক্রিয়াশীলতা বল ও তড়িৎ তীব্রতার মধ্যে সম্পর্কের সমীকরণ প্রতিপাদন কর।
***অধ্যায় ২০ (চল তড়িৎ)
জ্ঞানমূলকঃ
***১। সংজ্ঞাঃ তড়িৎ প্রবাহ, তড়িৎ ৰমতা রোধ, আপেৰিক রোধ, এক কিলোওয়াট ঘণ্টা, ভোলমিটার, শক্তি, সম প্রবাহ, পর্যাবৃত্ত প্রবাহ, চল তড়িৎ অভ্যনত্মরীণ রোধ ভোল্ট, তড়িৎ বর্তনী, তড়িৎ বিভব, তড়িৎ চালক, হারানো ভোল্ট, তুল্যরোধ ইত্যাদি
***২। এক কিলোওয়াট ঘণ্টকে জুলে প্রকাশ কর।
***৩।তড়িৎ ৰমতার একক কী?
***৪। ওমের সূত্রটি বর্ণনা কর।
অনুধাবনমূলকঃ
***১। তড়িচ্চালক শক্তি বলতে কী বোঝ?
***২। রোধের সমানত্মরাল সনি্নবেশ বলতে কী বোঝ?
***৩। কোন পরিবাহকের রোধ কী কী বিষয়ের ওপর নির্ভরশীল?
***৫। ২২০াু৬০ িএর অর্থ কী?
***৬। বর্তনীতে কেন ফিউর ব্যবহার করা হয় ব্যাখ্যা কর।
***৭। তড়িৎ ৰমতাকে কতভাগে প্রকাশ করা যায়? ব্যাখ্যা কর।
***৮। রেডিওতে ব্যাটারির সংযোগ ব্যাখ্যা কর।
***৯। কোন স্থানে তড়িৎ প্রবাহ বিঘি্নত হওয়ার কারণ ব্যাখ্যা কর।
***১০। তড়িৎ পরিবাহকত্বের ওপর তাপের প্রভাব ব্যাখ্যা কর।
প্রয়োগ ও উচ্চতর দৰতাঃ
***১। চিত্রসহ একটি সিরিজ বর্তনী ও সমানত্মরাল বর্তনীর মধ্যে পার্থক্য লিখ।
***২। বর্তনীর সমানত্মরাল সমবায়ে হ সংখ্যক রোধের তুল্য রোধ নির্ণয়ের সমীকরণ প্রতিপাদন কর।
***৩। শুষ্ক কোষের গঠন প্রণালি চিত্রসহ বর্ণনা কর।
***৪। কোষের স্থানীয় ক্রিয়া কীভাবে দূর করা যায়?
***৫। প্রমাণ কর যে, সমানত্মরাল সংযোগে সজ্জিত প্রতিটি রোধের বিপরীত রাশির সমষ্টি তুল্য রোধের বিপরীত রাশির সমান।
***৬। রোধের অণুক্রমিক সংযোগে তুল্যরোধ কীভাবে নির্ণয় করা হয়, লিখ।
***৭। রোধের সমানত্মরাল সংযোগে তুল্যরোধ কীভাবে নির্ণয় করা হয় লিখ। ***৮। প্রমাণ কর যে, অণুক্রমিক সনি্নবেশে সংযুক্ত সকল রোধের সমষ্টি তুল্য রোধের সমান***অধ্যায়ঃ ২১ (চৌম্বকবিদ্যা)
জ্ঞানমূলকঃ
***১। সংজ্ঞা : চুম্বক, কৃত্রিম চুম্বক, চৌম্বক পদার্থ ও অপদার্থ চৌম্বক, চৌম্বক ৰেত্র, উপমেরম্ন, কুরি বিন্দু, সিরামিক চুম্বক, চৌম্বক, দ্বিপোল, চুম্বকত্ব, চৌম্বক তীব্রতা, ডায়াচৌম্বক, ফেরোচৌম্বক, ফেরোচৌম্বক, ডোমেইন চৌম্বক, চৌম্বক বলরেখা, কুরি তাপমাত্রা, চুম্বক মেরম্ন ইত্যাদি।
অনুধাবনমূলকঃ
***১। একটি চুম্বককে দুটি খ-ে বিভক্ত করা হলে কী হবে_ব্যাখ্যা কর।
***২। পৃথিবী একটি বিরাট চুম্বক ব্যাখ্যা কর।
***৩। সিরামিক চুম্বকের দুটি ব্যবহার লিখ।
***৪। কোনো চুম্বকের উত্তর মেরম্ন আলাদা করা সম্ভব কী, বুঝিয়ে লিখ।
***৫। কোনো চৌম্বক পদার্থের অণুগুলো এক একটি স্বতন্ত্র চুম্বক হওয়া সত্ত্বে ও সব সময় চুম্বকের ন্যায় আচরণ করে না কেন?
***৬। অস্থায়ী চুম্বক তৈরির কাঁচা লোহ ব্যবহার করা হয় কিন্তু ভালো স্থায়ী চুম্বক তৈরি করতে ইস্পাতের প্রয়োজন হয় কেন ব্যাখ্যা কর।
প্রয়োগ ও উচ্চতর দৰতা
***১। চিত্রসহ চুম্বকত্বের ডোমেইন তত্ত্বের বিশদ বিবরণ দাও।
***২। চৌম্বক বলরেখার নমুনা অঙ্কন করে তাদের মধ্যকার আকর্ষণ-বিকর্ষণ বিশেস্নষণ কর।
**৩। চুম্বকের অনুবিক তত্ত্ব বর্ণনা কর।
***৪। ডায়া চৌম্বক ও প্যারাচৌম্বক পদার্থের মধ্যে পার্থক্য লিখ।
***৫। দ- চুম্বক লোহার গুঁড়ার মধ্যে ডুবালে কি ঘটবে_তা ব্যাখ্যা কর।
***৬। তড়িত চুম্বকটি ভৌত ও চৌম্বক ধর্মের সাথে আকরিকটির কী কী পার্থক্য থাকতে পারে বর্ণনা কর।
***অধ্যায়ঃ ২২ (তাড়িত চুম্বক)
জ্ঞানমূলকঃ
***১। সজ্ঞা দাওঃ তড়িৎ প্রবাহের চৌম্বক ক্রিয়া, সলিনয়েড, তড়িৎ মোটর, তড়িৎ চুম্বক, তড়িৎ চৌম্বক আবেশ, ট্রান্সফরমার, জেনারেটর ইত্যাদি।
**২। দূরাদূরানত্মের তড়িৎ প্রেরণের জন্য কোন ধরনের ট্রাসন্সফরমার ব্যবহৃত হয়?
***৩। তড়িৎ প্রবাহের চৌম্বক ক্রিয়া কে আকিষ্কার করেন?
**৪। পাওয়ার হাওস থেকে বিদু্যৎকে কত ভোল্টে পাঠানো হয়?
**৫। নিম্নধাপী ট্রান্সফরমার কোথায় ব্যবহৃত হয়?
অনুধবনমূলকঃ
***১। দূরদূরানত্মে তড়িৎ প্রেরণের জন্য তড়িৎ প্রবাহ হ্রাস করা হয় কেন?
***২। তড়িৎবাহী তারের উপর চুম্বকের প্রভাব বর্ণনা কর।
***৩। তাড়িত চুম্বকের প্রাবল্য কীভাবে বৃদ্ধি করা যায়?
***৪। এ. সি. ও ডি . সি. ডায়নামোর মধ্যে পার্থক্য কী?
***৫। ডায়নামো ও তড়িৎ মোটরের মধ্যে পার্থক্য কী?
**৬। সলিনয়েডে সৃষ্ট চৌম্বক প্রাবল্য কিসের উপর নির্ভর করে।
প্রয়োগ ও উচ্চতর দৰতাঃ
***১। জেনারেটরের গঠন ও কার্যপ্রণালি বর্ণনা করো।
***২। জেনারেটরের ক্রিয়ার সাথে ফ্যারাডের ১ম সূত্রের যে ন্যায় আচরণ করে_ব্যাখ্যা কর।
***৪। ট্টান্সফরমার ভোল্টেজ ও বিদু্যৎপ্রবাহ উভয়কে রূপানত্মর করে বিশেস্নষণ কর।
***৫। জাতীয় গ্রিড-এ প্রবাহ উচ্চ বিভব যুক্ত হওয়ার অত্যনত্ম জরম্নরী বিশেস্নষণ কর।
***অধ্যায়ঃ ২৩ (ইলেকট্রনিকস)
জ্ঞানমূলকঃ
***১। সজ্ঞা দাওঃ রেকটিফায়ার,অ্যামপিস্নফায়ার, রাডার, কম্পিউটার, ডোপায়ন অনত্মরক, বেতার তরঙ্গ, ইলেকট্রন গান, ট্রানজিস্টার, অর্ধপরিবাহী, দাতা পরমাণু, ডোপিং, মডুলেশন ইত্যাদি।
***২। বেতার, তরঙ্গ দৈর্ঘ্যে পালস্না কত?
***৩। এঙ্ রশ্মির তরঙ্গ দের্ঘৈ্য পালস্না কত?
অনুধাবনমূলকঃ
***১। বিমুখী বোক কী?
***২। ঢ় টাইপ অর্ধপরিবাহী কীভাবে তৈরি করা হয়?
***৩। ঢ়হ জংশনকে ডায়োড বলার কারণ কী?
***৪। রঙ্গিন টেলিভিশনের ছবি রঙ্গিন হয় কীভাবে?
***৫। রেকটিফায়ারের মূলনীতি ব্যাখ্যা কর।
***৬। ট্রানজিস্টার কীভাবে বিবর্ধন ঘটায়?
**৭। স্ক্যানিং কী?
**৮। রাডারের ২টি ব্যবহার কী?
প্রয়োগ ও উচ্চতর দৰতাঃ
***১। কীভাবে অঈ প্রবাহকে উঈ প্রবাহে রূপানত্মর করা যায়? ব্যাখ্যা কর।
***২। চ-হ জংশনের বিভব প্রাচীরের প্রয়োজনীয়তা ও গুরম্নত্ব ব্যাখ্যা কর।
**৩। রেডিওর গ্রাহক অ্যারিয়াল থেকে শব্দ কীভাবে লাউড স্পিকারে পেঁৗছে চিত্রসহ বর্ণনা কর।
***৪। টেলিভিশনে শব্দ ও ছবি কীভাবে পাঠানো হয়?
***৫। রাডার/কম্পিউটারের ব্যবহার বর্ণনা কর।
***৬। টেলিভিশন এর ছবি প্রেরণে স্ক্র্যানিং কিভাবে ব্যবহার করা হয়? ব্যাখ্যা কর।
***অধ্যায়ঃ ২৪ (আধুনিক পদার্থ বিজ্ঞান)
জ্ঞানমূলকঃ
***১। সজ্ঞা দাওঃ এঙ্রে, তেজস্ক্রিয়তা, মৌলিক কণিকা, অর্ধায়ু ব্যাঙ, ছায়াপথ, এক বেকেরেল, নৰত্র ইদ্যাদি।
***২। গামা রশ্মির একক, এঙ্রের একক কী?
অনুধাবনমূলকঃ
***১। এঙ্রের ধর্ম লিখ?
***২। তেজস্ক্রিয় মৌলের অর্ধায়ু কী?
***৩। মৌলিক কণিকার বৈশিষ্ট্যগুলো কী কী?
***৪। আকাশ গঙ্গা কী?
***৫। বিভিন্ন ৰেত্রে এঙ্রের ব্যবহার লিখ।
**৬। এঙ্রেও সাধারণ আলোর মধ্যে পার্থক্য কী?
প্রয়োগ ও উচ্চর দৰতাঃ
***১। এঙ্রে শক্তপাত ভেদ করতে পারে না কেন? ব্যাখ্যা কর।
***২। তেজস্ক্রিয়তার বৈশিষ্ট্যগুলো/ব্যবহার কী কী?
***৩। এঙ্রের সাহায্যে কীভাবে মানব দেহের ভাঙ্গা হার চিহ্নিত করা হয় ব্যাখ্যা কর।
অধ্যায়ঃ ২৫ (শক্তি উৎস ও ব্যবহার)
জ্ঞানমূলকঃ
***১। সজ্ঞা দাওঃ নিউক্লিয় বিক্রিয়া, চেইন বিক্রিয়া, নিউক্লিয় শক্তি, বায়োগ্যাস, মন্থরক, শক্তির সংকট, সৌরশক্তি, পেট্রোলিয়াম বীব্শ্ম জ্বালানি সৌরচুলিস্ন ইত্যাদি।
***২। প্রাকৃতিক গ্যাসের প্রধান উপাদান কী?
***৩। প্রাকৃতিক গ্যাসের মধ্যে মিথেনের পরিমাণ শতকরা কত?
***৪। পৃথিবীতে এ পর্যনত্ম প্রাপ্ত তেল কত টন?
***৫। নিয়মিত নিউক্লিয় শৃঙ্খল বিক্রিয়া কোথায় করা হয়?
অনুধাবনমূলকঃ
***১। পারমাণবিক চুলিস্নতে বোরন দনত্ম কেন ব্যবহার করা হয়।
***২। নিউক্লিয় চুলিস্নতে মন্থরক ব্যবহার করা হয় কেন?
***৩। আমাদের শক্তির চাহিদা দিন দিন বাড়ছে কেন?
***৪। সৌরশক্তির কয়েকটি ব্যবহার উলেস্নখ কর?
***৫। নিউক্লিয় বিক্রিয়া কীভাবে নিয়ন্ত্রণ করা হয়?
প্রয়োগ ও উচ্চতর দৰতাঃ
***১। বিভিন্ন প্রকার জীবাশ্ম জ্বালানির বর্ণনা কর।
***২। জীবাশ্মর জ্বালানি অচিরেই নিঃশেষ হয়ে যাবে তা বিশেস্নষণ কর।
***৩। একটি ব্যায়োগ্যাস পস্নান্টের গঠন ও ক্রিয়ার সংৰিপ্ত বিবরণ দাও।
**৪। চিত্রসহ একটি বৈদু্যতিক মোটরের গঠন ও কার্যা প্রণালি বর্ণনা কর।
***৫। শক্তির অবচয় রোধের প্রয়োজনীয়তা ব্যাখ্যা কর।
**৬। আধুনিক সভ্যতা বিকাশে শক্তির প্রয়োজনীয়তা ও গুরম্নত্ব ব্যাখ্যা কর।
**৭। নিউক্লিয় শক্তি কীভাবে উৎপন্ন হয় ব্যাখ্যা কর।
বি.দ্র: এ সাজেশনটি স্টুডেন্টকেয়ারবিডি.কম প্রস্তুত করেনি। শুধুমাত্র শিক্ষার্থীদের সরবরাহ করার উদ্দেশ্যেই সংগ্রহ ও প্রকাশ করা হয়েছে।

 
 

Rate this post

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

You cannot copy content of this page