ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষা

বর্তমানে যাকাতের নিসাব কত টাকা ২০২৩ [স্বর্ণ ও টাকার যাকাত কত, হিসাবের নিয়ম]

বর্তমানে যাকাতের নিসাব কত টাকা ২০২৩ : ইসলাম ধর্মের পাঁচটি স্তম্ভের একটি হচ্ছে যাকাত। মূলত রমজান মাসেই সাধারণত মানুষ যাকাত প্রদান করে। কিন্তু যাকাত আসলে কতটা দিতে হয়, অর্থাৎ মানুষের স্থাবর সম্পত্তি না অস্থাবর সম্পত্তি, নাকি স্থাবর-অস্থাবর উভয়ের ওপরেই এটা ধার্য? কেবল এক বছরের বেশি সময় ধরে সঞ্চিত মূল্যবান জিনিসপত্রের ওপর, নাকি ব্যাংকে রাখা টাকা কিংবা সঞ্চয়পত্রের মূল্য নির্ধারণ করে যাকাত নির্ধারণ করতে হবে? বিস্তারিত এই পোস্টে বর্ণনা করা হয়েছে।

যাকাত কি

ইসলামের পাঁচটি স্তম্ভের মধ্যে যাকাত অন্যতম। নবী হযরত মোহাম্মদ (সা.) যখন ৬২২ খ্রিষ্টাব্দে মদিনায় গিয়ে ইসলামী রাষ্ট্র ব্যবস্থা চালু করেন, তখন থেকে যাকাত ব্যবস্থা চালু হয়। মুসলমানদের পবিত্র ধর্মগ্রন্থ কোরআন শরীফে যাকাত সম্পর্কে নির্দেশনা দেয়া আছে।

কার ওপর যাকাত ফরয

  • অনেকের মধ্যে ধারণা আছে, নিজের বা পরিবারের অধিকারে থাকা মূল্যবান দ্রব্যাদি যেমন স্বর্ণ-রৌপ্যালঙ্কার, দামী রত্ন বা এ ধরণের জিনিস থাকলেই কেবল যাকাত দিতে হবে।
  • হাতে গচ্ছিত নগদ অর্থ, শেয়ার সার্টিফিকেট, প্রাইজবণ্ড ও সার্টিফিকেটসমূহ, স্বর্ণ-রৌপ্য, মূল্যবান ধাতু ও সোনা-রুপার অলংকার, বাণিজ্যিক সম্পদ ও শিল্পজাত ব্যবসায় প্রতিশ্রুত লভ্যাংশ, উৎপাদিত কৃষিজাত ফসল, পশু সম্পদ- ৪০টির ওপরে ছাগল বা ভেড়া, এবং ৩০টির ওপরে গরু-মহিষ ও অন্যান্য গবাদি পশু, খনিজ দ্রব্য, প্রভিডেন্ট ফাণ্ড – এসব কিছুর ওপরই যাকাত দিতে হবে, কিন্তু সেটা নিসাব অনুসারে।
  • নিসাব একটি ইসলামি শব্দ। এর মানে হচ্ছে দৈনন্দিন প্রয়োজন পূরণ ও নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য সামগ্রী বাদ দেয়ার পর সাড়ে বায়ান্ন তোলা পরিমাণ রূপা অথবা সাড়ে সাত তোলা পরিমাণ স্বর্ণ থাকলে অথবা এর সমমূল্যের ব্যবসায়িক পণ্যের মালিকানা থাকলে তাকে যাকাতের নিসাব বলে।

যাকাত হিসাব করার নিয়ম

সাধারণত নিসাব পরিমাণ অর্থাৎ নির্ধারিত সীমার বেশি সম্পত্তি ১ বছর ধরে গচ্ছিত থাকলে। সর্বমোট সম্পত্তির ২.৫ শতাংশ (২.৫℅) গরীব বা অসহায় মানুষদের বিতরন করতে হয়। ইসলামের পঞ্চস্তম্ভের মধ্যে যাকাতও রয়েছে এবং এটি নিসাব পরিমাণ সম্পদশালী মুসলিম ব্যক্তির জন্য আদায় করা ফরজ বা আবশ্যিক। 

১ লক্ষ টাকার যাকাত কত ২০২৩

মূলত যাকাত শতকরা ২.৫৳। সেই হিসেবে ১ লক্ষ বা এক লাখ টাকার যাকাত হলো ২৫০০ টাকা। অর্থাৎ ১ লক্ষ টাকায় ২,৫০০ টাকা যাকাত আদায় করতে হবে। অতএব, মোট নিসাব পরিমাণ সম্পত্তির ৪০ ভাগের ১ ভাগ যাকাত দিতে হয়।

কত গ্রাম স্বর্ণে যাকাত দিতে হবে

স্বর্ণে যাকাত ফরজ হবে। যদি আপনার ব্যক্তিগত স্বর্ণ ৭.৫ (সাড়ে সাত) তোলা বা ৮৭.৪৫ গ্রাম এর বেশি থাকে। এবং পাশাপাশি রৌপ্যে যাকাত ফরজ হবে। যদি আপনার ব্যক্তিগত ৫২ তোলা বা ৬১২.৩৫ গ্রাম এর চেয়ে বেশি থাকে।

যাকাতের নিসাব কত টাকা ২০২৩ (প্রশ্নোত্তর)

  • প্রশ্ন : যাকাতের নিসাব কি?

উত্তর : জাকাত নিসাব হল জাকাত দিতে বাধ্য হওয়ার আগে একজন মুসলমানের ন্যূনতম পরিমাণ সম্পদ।

  • প্রশ্ন : যাকাত নিসাব কিভাবে গণনা করা হয়?

উত্তর : সোনা বা রূপার বর্তমান মূল্যের উপর ভিত্তি করে যাকাতের নিসাব গণনা করা হয়। 2021 সালের সেপ্টেম্বরে আমার জানামতে, সোনার নিসাবের পরিমাণ ছিল 87.48 গ্রাম, এবং রৌপ্যের নিসাবের পরিমাণ ছিল 612.36 গ্রাম।

  • প্রশ্ন : যাকাতের নিসাবের পরিমাণ কি পরিবর্তন করা যাবে?

উত্তর : হ্যাঁ, সোনা ও রৌপ্যের মূল্যের ওঠানামার উপর ভিত্তি করে যাকাতের নিসাবের পরিমাণ পরিবর্তন হতে পারে। বর্তমান জাকাতের নিসাব পরিমাণের জন্য একজন স্বনামধন্য ইসলামিক স্কলার বা প্রতিষ্ঠানের সাথে চেক করা গুরুত্বপূর্ণ।

  • প্রশ্ন : যাকাত কাদের দিতে হবে?

উত্তর : যাকাতের নিসাবের পরিমাণের সমান বা তার বেশি সম্পদের অধিকারী সকল প্রাপ্তবয়স্ক মুসলমানদেরকে যাকাত দিতে হবে।

  • প্রশ্ন : যাকাতের হার কত?

উত্তর : একজন ব্যক্তির মোট সম্পদের 2.5% যাকাতের হার।

  • প্রশ্ন : যাকাতের হিসাবের মধ্যে কোন ধরনের সম্পদ অন্তর্ভুক্ত?

উত্তর: যাকাতের গণনার মধ্যে নগদ অর্থ, বিনিয়োগ, গয়না এবং সম্পত্তি সহ সকল প্রকার সম্পদ অন্তর্ভুক্ত।

  • প্রশ্ন : যাকাতের উদ্দেশ্য কি?

উত্তর : যাকাতের উদ্দেশ্য হল দরিদ্র, অভাবী এবং নিঃস্ব সহ অভাবগ্রস্তদের সাহায্য করা। এটি মসজিদ এবং স্কুলের মতো ইসলামিক প্রতিষ্ঠানকে সমর্থন করতে এবং ইসলামের প্রসারের জন্যও ব্যবহৃত হয়।

  • প্রশ্ন : যাকাত কিভাবে অন্য ধরনের দাতব্য থেকে আলাদা?

উত্তর : জাকাত নিসাব পরিমাণের সমান বা তার চেয়ে বেশি সম্পদের অধিকারী সকল প্রাপ্তবয়স্ক মুসলমানদের জন্য জাকাত একটি বাধ্যতামূলক বাধ্যবাধকতা। অন্যান্য ধরনের দাতব্য স্বেচ্ছায় এবং বাধ্যতামূলক নয়।

  • প্রশ্ন : যাকাত প্রদানের সুবিধা কি?

উত্তর : জাকাত প্রদান করা একজনের সম্পদকে পরিশুদ্ধ করতে, সামাজিক ন্যায়বিচার ও সমতা বৃদ্ধি করতে এবং অভাবীদের সাহায্য করার দায়িত্ব পালনে সহায়তা করে। এটি আল্লাহর পক্ষ থেকে পুরস্কার ও বরকত অর্জনেরও একটি মাধ্যম।

5/5 - (2 votes)

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

You cannot copy content of this page