শিক্ষা বার্তা

২৬ হাজার দুইশ স্কুল জাতীয়করণের ঘোষণা

দেশের ২৬ হাজার ২শ বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে জাতীয়করণ করার ঘোষণা দিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রাজধানীর শেরে বাংলা নগরে জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে বুধবার বেলা ১২টায় প্রাথমিক শিক্ষক মহাসমাবেশে তিনি এ ঘোষণা দেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, “২৬ হাজার ২০০টি বিদ্যালয় জাতীয়করণ করা হল। সে সাথে বিদ্যালয়ের প্রায় এক লাখ চার হাজার বেসরকারি শিক্ষকের চাকরিও জাতীয়করণ হয়ে গেল।”
প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, “শুধু রেজিস্টার্ড বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জাতীয়করণের দাবি ছিল আপনাদের। শুধু এমপিওভুক্ত রেজিস্টার্ড বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সরকারিকরণ নয়, আমরা স্থায়ী নিবন্ধনপ্রাপ্ত বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, অস্থায়ী নিবন্ধনপ্রাপ্ত বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পাঠদানের অনুমতিপ্রাপ্ত বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, এমপিও বহির্ভূত কমিউনিটি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সরকারি অর্থায়নে প্রতিষ্ঠিত এনজিও বিদ্যালয়, পাঠদানের অনুমতির সুপারিশপ্রাপ্ত বিদ্যালয় এবং স্থাপিত কিন্তু চালুর অনুমতির অপেক্ষাধীন বিদ্যালয়সমূহ সরকারি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।”
তিনি আরও বলেন, “যেখানে সেখানে নয় বরং প্রাথমিক বিদ্যালয় সরকারিভাবে গড়ে তোলা হবে। কোথায় তা গড়ে তোলা হবে এটা সরকারের দায়িত্ব। তবে বেসরকারি বিদ্যালয়গুলো অপরিবর্তিত থাকবে।”
তিন ধাপে দেশের ২৬ হাজার ১৯৩টি বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণ হচ্ছে। এসব প্রতিষ্ঠানের ১ লাখ ৩ হাজার ৮৪৫ জন শিক্ষক সরকারি সুযোগ-সুবিধা সুযোগ পাবেন।
প্রথম ধাপে চলতি বছর ১ জানুয়ারি থেকেই ২২ হাজার ৯৮১টি বিদ্যালয়ের ৯১ হাজার ২৪ জন শিক্ষক সরকারি সুযোগ-সুবিধাভুক্ত হচ্ছেন। এতে ২০১২-১৩ অর্থবছরে অতিরিক্ত খরচ হবে একশ কোটি টাকা।
দ্বিতীয় ধাপে চলতি বছরের ১ জুলাই থেকে স্থায়ী ও অস্থায়ী নিবন্ধনপ্রাপ্ত, পাঠদানের অনুমতিপ্রাপ্ত কমিউনিটি এবং সরকারি অর্থায়নে এনজিও পরিচালিত দুই হাজার ২৫২টি স্কুলের নয় হাজার ২৫ জন শিক্ষক সুবিধা পাবেন। এতে ২০১৩-১৪ অর্থবছরে জাতীয়করণের জন্য বরাদ্দ হবে অতিরিক্ত ৩৭১ কোটি টাকা।
আর তৃতীয় ধাপে ২০১৪ সালের ১ জুলাই থেকে পাঠদানের অনুমতির সুপারিশপ্রাপ্ত এবং পাঠদানের অনুমতির অপেক্ষাধীন ৯৬০টি স্কুলের তিন হাজার ৭৯৬ জন শিক্ষক এমপিও সরকারি সুযোগ-সুবিধা পাবেন। এটি বাস্তবায়নে ২০১৪-১৫ অর্থবছরে অতিরিক্ত খরচ হবে ৬৫১ কোটি টাকা।
বিশাল সংখ্যক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জাতীয়করণ বাংলাদেশের ইতিহাসে দ্বিতীয় ঐতিহাসিক ঘটনা। প্রায় ২১ বছর ধরে এ দাবিতে আন্দোলন করে আসছেন শিক্ষকরা। এতে অবহেলিত ও বেতন-ভাতা বঞ্চিত লক্ষাধিক প্রাথমিক শিক্ষকের দীর্ঘদিনের প্রতীক্ষা ও আন্দোলন-সংগ্রামের অবসান হয়েছে। তাই সারাদেশ থেকে এ মহাসমাবেশে একত্রিত হন ৫০ হাজারেরও বেশি প্রাথমিক শিক্ষক।
সূত্র: পরিবর্তন ডট কম

Rate this post

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

You cannot copy content of this page